বুধবার, আগস্ট ২১, ২০১৯
প্রথমপাতা > ক্যাম্পাস > জাবিতে হিম উৎসব শুরু, থাকছে ব্যতিক্রমধর্মী আয়োজন

জাবিতে হিম উৎসব শুরু, থাকছে ব্যতিক্রমধর্মী আয়োজন

মাহমুদুলহক সোহাগ

প্রতিবারের ন্যায় শীত মৌসুমকে কেন্দ্র করে সাংস্কৃতিক রাজধানীখ্যাত জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) আজ শুরু হয়েছে হিম উৎসব-২০১৯। ক্যাম্পাসে তিন দিনব্যাপী এ উৎসবে থাকছে লোকজগান, শাস্ত্রীয়সংগীত, গাজীরগান, আদিবাসীনাচ, সাপ খেলা, লাঠি খেলা, আর্ট ক্যাম্প, কনসার্ট, পেইন্টিং ও আলোকচিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠান।

সু আশায় কেটে যাক, কু আশার ঘোর- প্রতিপাদ্যকে ধারণ করে কুয়াশার নগরী এ ক্যাম্পাসে ব্যতিক্রমধর্মী হিম উৎসব চলবে ১৯ জানুয়ারি (শনিবার) পর্যন্ত। প্রতিদিন সন্ধ্যা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সেলিম আল-দীন মুক্তমঞ্চে অনুষ্ঠান শুরু হয়ে চলবে গভীর রাত পর্যন্ত।

স্বপ্নাতুর মানুষদের সুর, শব্দ ও রঙ আর রসে ভরিয়ে তুলতে শীত বরণীয়া এ হিমউৎসবের আয়োজন করেছে -পরম্পরায় আমরা’ ব্যানারে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। হিম উৎসবের আয়োজক- পরম্পরায় আমরা’র সংগঠকরা জানান,  আমরা এখন বাস করছি এমন একটা সময়ে যখন আমাদের মাঝ থেকে ধীরে ধীরে হারিয়ে যাচ্ছে আমাদের লোকজসংস্কৃতি। শীতের রুক্ষতার ন্যায় এক অদ্ভুত অন্ধকার গ্রাস করে নিচ্ছে আমাদের গান, কবিতা, ভাষা আর আমাদের সংস্কৃতিকে।’

তাই শীতের রুক্ষতাকে দূরে সরিয়ে দিয়ে, কুয়াশার চাদর গায়ে জড়িয়ে দুহাত ভরা স্নিগ্ধতা নিয়ে তিন বছরের ন্যায় এবারও কুয়াশানগরী জাহাঙ্গীরনগর আগামী ১৭, ১৮ এবং ১৯ জানুয়ারি আয়োজন করতে যাচ্ছে “হিম উৎসব-২০১৯”। আমরা আমাদের দেশের নিজস্ব বিভিন্ন সংস্কৃতির বিকাশ, চর্চা, উপস্থাপন এবং সংরক্ষণ করার লক্ষ্যেই এই উদযাপন।’

১৭ জানুয়ারি (বৃহস্পতিবা) বিকাল তিনটায় অমর একুশে পাদদেশ থেকে হিম যাত্রার মধ্য দিয়ে উৎসবের উদ্বোধন হবে। সাড়ে তিনটায় সাপ খেলা ও লাঠি খেলা, সন্ধ্যা সাড়ে পাঁচটায় আদিবাসী নাচ, সাড়ে ছয়টায় সঙ যাত্রা এবং সন্ধ্যা সাতটায় অনুষ্ঠিত হবে গাজীরগান। এছাড়াও জহির রায়হান মিলনায়তন চত্বরে দিনব্যাপী থাকবে পেইন্টিং ও আলোকচিত্র প্রদর্শনী।

১৮ জানুয়ারি (শুক্রবার) উৎসবের দ্বিতীয় দিন সকাল দশটায় জহির রায়হান মিলনায়ত চত্বরে আর্ট ক্যাম্প, সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় সেলিম আল-দীন মুক্তমঞ্চে অনুষ্ঠিত হবে শাস্ত্রীয় সংগীতানুষ্ঠান। এছাড়াও কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়া চত্বরে দিনব্যাপী থাকবে পেইন্টিং ও আলোকচিত্র প্রদর্শনী।

১৯ জানুয়ারি (শনিবার) উৎসবের শেষ দিন সকাল এগারোটায় সেলিম আল দীন মুক্তমঞ্চে কনসার্ট অনুষ্ঠিতহবে। কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়া চত্বরে দিনব্যাপী থাকবে পেইন্টিং ও আলোকচিত্র প্রদর্শনী।

২০১৫ থেকে ধারাবাহিকভাবে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে এই উৎসব। নিজস্ব সংস্কৃতির প্রতি একদল তরুণের ভালোবাসা আর দর্শক-শ্রোতাদের আগ্রহকে বিবেচনায় এনে বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু শিক্ষার্থী মিলে এই উৎসবের আয়োজন করে আসছে।

বাংলার হারিয়ে যাওয়া সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে লালন করতে বেশ কিছু শিক্ষার্থী মিলে তারা গড়ে তুলেছে- পরম্পরায় আমরা’ নামের একটি সামাজিক সংগঠন। যে সংগঠনটি গেল তিন বছরের মতো এবারও আয়োজন করতে যাচ্ছে -হিম উৎসব’। মাত্র তিন বছরের আয়োজনেই হিম উৎসব বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীসহ বাইরের দর্শনার্থীদের আগ্রহের উৎসব হয়ে দাঁড়িয়েছে।

গত বছরে জানুয়ারিতেও- হিমদেশে উষ্ণ হোক প্রাণ’ স্লোগানে তিন দিনব্যাপী আর্ট ক্যাম্প, বাউলগান, কাওয়ালিগান, পালাগান, চিত্র ও আলোকচিত্র প্রদর্শনী  এবংকনসার্ট অনুষ্ঠিতহয়।

 

ফেসবুক থেকে মন্তব্য

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।