বুধবার, আগস্ট ২১, ২০১৯
প্রথমপাতা > ফিচার

বিভাগের শিক্ষাসফর: যেন স্মৃতির জলসাঘর!  

জাকির হোসেন* চলছে আমাদের জাদুর গাড়ি। অজানা অদৃশ্য স্বপ্নপুরীর দিকে। সবার  মধ্যে দূর দ্বীপবাসিনীকে দেখার উত্তেজনা। বৃদ্ধ বয়সে বা কর্মব্যস্ত জীবনে সোনালী অতীত হয়ে থাকে বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের শিক্ষা সফর। শেষ বেলাতে অতীতের স্মৃতি রোমন্থন করতে গেলে কখনো শিক্ষা সফরের মজার বিষয়গুলো মিস হয় না। ছেলে-মেয়ে, নাতি-নাতনী সবাইকে মজার সময়ের কথা বলতে গেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষাসফরের কথা আসবেই। শিক্ষাসফর হচ্ছে আমাদের দেশের শিক্ষার্থীদের বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের সৌন্দর্য্য। এমনই একটি গুরুত্বপূর্ণ স্মৃতি সংগ্রহ করতে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যম অধ্যয়ন বিভাগ শিক্ষা সফরে গিয়েছিল দ্বারুচিনি দ্বীপ খ্যাত সেন্টমার্টিনে। ৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ তারিখ গোধূলির অস্তমিত বিকেলে ক্যাম্পাস থেকে শুরু হয় আমাদের যাত্রা। বাস বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক অতিক্রম করার সঙ্গে

বিস্তারিত পড়ুন

বসন্ত এসে গেছে…

আল আমীন* প্রকৃতিতে এখন শীতের রুক্ষতা কিংবা রিক্ততার কোন ছাপ নেই । বরং বৃক্ষের নগ্নশাখাকে ভরিয়ে তুলেছে নরম কচিপাতার দল। নবীন পত্রদলকে জায়গা করে দিতেই যেন প্রবীণরা সব ঝড়ে পড়েছিল শীতের শুষ্কতায়। নিষ্কলুষ কচিপাতায় রৌদ্র-ছায়ার রঙ্গীন খেলা চোখকে প্রশান্তিতে ভরিয়ে তুলছে। খানিক বিরতিতে বয়ে চলা ঝিরঝিওে মাতাল হাওয়া শুধু প্রকৃতিতে নয়, হৃদয়েও দোলা দিয়ে যাচ্ছে। বাতাসের মৃদু-মন্দ ঝাপসা মনকে উদাস করে দেয়। মূহুর্তেই ক্ষণিকের বাস্তবতাকে বহু দূরে ঠেলে দিয়ে হৃদয়ে কাঁপন তুলছে উদাসী এ হাওয়া। এখানে-ওখানে ফুটে থাকা বাহারি ফুলের রঙরাঙাতে চায় মনকেও, জাগাতে চায় হৃদয়পটে সুগোপনে লুকিয়ে থাকা ঘুমন্ত কোন কোন স্মৃতিশহরকে। মন যেন সহসাই বলে উঠে, “তবে কি বসন্ত

বিস্তারিত পড়ুন

জাহাঙ্গীরনগরে শীতের দিনলিপি!

আল-আমীন* ভোরের আলো ফুটলেও পুব আকাশে সূর্যের দেখা নেই তখনো! শীতল আলস্যে সূয্যি মামারও বুঝি ঘুম ভাঙ্গেনি। বিস্তৃত কুয়াশার চাদর তখন প্রকৃতির গায়ে। আপাদমস্তক এ চাদর জড়িয়ে প্রকৃতিও যেন ঘুমন্ত!   শীতের বিদায়ী লগ্নে প্রকৃতিতে এখন বসন্তের হাতছানি। কিন্তু তা আর বোঝবার উপায় কই? জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় চত্ত্বরে এখনো যে ভরাশীত কাল। টকটকে লাল সূর্যটার রঙিন আভা আকাশে মৃদু আলো ছড়াতে শুরু করে ততোক্ষণে। গাছের পাতার আড়ালে মুচকি হাসে টুকটুকে লাল সূর্যি মামা। কুয়াশার ঘন আবরণ ধীরে ধীরে কেটে যেতে শুরু করে। সূর্যের আগমনীবার্তা পেয়ে পাখিরাও জেগে উঠতে শুরু চারিদিকে! কিচির মিচির রব উঠে তখন ক্যাম্পাসের আনাচে কানাচে৷ঘর ছেড়ে খাবারের সন্ধানে বেরুতে শুরু করে পাখিদের একেকটি

বিস্তারিত পড়ুন

আহা মিষ্টি!

আফসানা ইয়াসমিন মোনালিসা* মাছে-ভাতে যেমন বাঙালি, তেমনি মিষ্টিপ্রিয়ও বাঙালি। আপ্যায়ন হোক কিংবা উৎসবে,খাবারের শেষ পাতে হোক কিংবা শুভ সূচনা হোক মিষ্টি খাওয়া আমাদের চাই-ই-চাই। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুবাদে হাতের নাগালে জিভে জল আনা মিষ্টির দোকানে যাওয়া হয় না তেমন একটা। তবে সাভারে অথবা ক্যাম্পাসের পাশেই গেরুয়ার মিষ্টির দোকানগুলো যে পাশ কাটিয়ে যাবার সময় ডাক দেয় না তাও কিন্তু নয়। সাভারের বিখ্যাত সব মিষ্টির গল্প শুনে শুনে ঠিক করলাম একদিন বেড়িয়ে পড়ব রসের শিরায় ডুবানো মিষ্টিদের স্বাদ আস্বাদন করতে। যেই কথা সেই কাজ,বন্ধু-বান্ধবীদের বলতেই প্রথমেই খোঁজ মিলল কালাচাঁন মিষ্টান্ন ভান্ডারের। সাভার বাসস্টান্ডের ছোট্ট দোকানটায় ঢুকে একপ্রকার হতাশই হলাম। একে তো ছোট দোকান তার

বিস্তারিত পড়ুন

অদম্য মাহফুজ

রাইয়ান বিন আমিন* মাহফুজুল হক শাওন। পড়াশোনা করছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব ইনফরমেশন টেকনোলজি (আইআইটি)-তে। এই বিষয়ে পড়াশোনা করে অন্যরা যেখানে খেলাধুলার কথা চিন্তাও করতে পারেনা, সেখানে পড়াশোনার পাশাপাশি খেলাধুলা তার জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ। বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে ফুটবল এবং দৌড়ে সফলতার স্বাক্ষর রাখা এই তরুণ এবার বিদেশের মাটিতে নিজেকে চিনিয়েছেন। সম্প্রতি ভারতে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক দৌড় প্রতিযোগিতা “আলট্্রা টাফম্যান ডেজার্ট চ্যাম্পিয়নশিপ জয়সালমির- ২০১৮” এবং “টাটা স্টীল কোলকাতা ২৫ কি.মি.- ২০১৮” শেষ করে দেশে ফিরেছেন। রাজস্থানের জয়সালমির মরুভূমিতে অনুষ্ঠিত হওয়া “আলট্্রা টাফম্যান ডেজার্ট চ্যাম্পিয়নশিপ জয়সালমির- ২০১৮’ -এর বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে বাংলাদেশ থেকে মাত্র দুইজন প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করেন। এর মধ্যে ১৬১ কি.মি. ক্যাটাগরিতে পুরোবিশ্ব থেকে মাত্র চারজন

বিস্তারিত পড়ুন

জাবির সেরা তিন বিতার্কিক

রাইয়ান বিন আমিন ফয়সাল মাহমুদ শান্তু খুব সহজভাবে প্রতিপক্ষের কথাগুলোকে যুক্তি দিয়ে ভাংতে পারে। তাজরীন ইসলাম তন্বী প্রত্যেকটা প্রস্তাবকে সমান গুরুত্ব দিয়ে দলের মধ্যে অলোচনা তৈরী করতে বেশ পটু। আর প্রাসঙ্গিক তথ্য সংগ্রহ করতে মারুফ বিন মোজাম্মেল অতুলনীয়। তিনজনের এই যোগফলেই সম্প্রতি শেষ হওয়া জাতীয় বিতর্ক প্রতিযোগীতা ২০১৮- তে দেশ সেরা ৩২ টি বিশ্ববিদ্যালয়কে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেট অরগানাইজেশন(জুডো)। বিতর্ক নিয়ে স্বপ্নচারী তিন তরুণের কথা জানাচ্ছেন রাইয়ান বিন আমিন। স্কুল-কলেজ জীবনে কখনো বিতর্ক করা হয়নি। তবে আবৃত্তি করতেন। ২০১৫ সালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগে ভর্তি হওয়ার পরই দুই বড় ভাইয়ের চাপে পড়ে মূলত বির্তকের সাথে যুক্ত হন। প্রথমদিকে যখন বিতর্ক

বিস্তারিত পড়ুন

স্বর্ণ বিজয়ী ৭ জন

রাইয়ান বিন আমিন সম্প্রতি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাত শিক্ষার্থী ‘ডিউক অব এডিনবার্গ অ্যাওয়ার্ড’ পেয়েছেন। বিশ্বব্যাপী কমনওয়েলথভুক্ত দেশগুলোর মধ্য থেকে সেরা ইয়ুথ একটিভিস্টদের বৃটিশ হাইকমিশনের মাধ্যমে এ অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়। ২০১২ সাল থেকে বাংলাদেশকে এই অ্যাওয়র্ডের অন্তর্ভূক্ত করা হয়। স্বর্ণপদক প্রাপ্ত শিক্ষার্থীর সবাই স্কুল- কলেজ পর্যায় থেকেই স্বেচ্ছাসেবার সাথে সম্পৃক্ত। বিশ্ববিদ্যালয়ে আসার পর কাজের দুয়ার আরও উন্মুক্ত হয়ে যায়। বড় পরিসরে কাজ করার সুযোগ পেয়ে তা হাতছাড়া করেননি। যুক্ত হয়েছেন“জাহাঙ্গীরনগর ইউনিভার্সিটি মডেল ইউনাইটেড নেশন অ্যাসোসিয়েশন” (জেইউমুনা)- এর সাথে। সংগঠনটি মূলত ইয়ুথ লিডারশীপ, কমিউনিকেশন স্কীল, নেগোসিয়েশন স্কীল এবং নেটওয়ার্কিং- এর বৃদ্ধির জন্য কাজ করে থাকে। এসব কাজের অভিজ্ঞতা থেকে উৎসাহিত হয়ে ২০১৬ সালের নভেম্বরে

বিস্তারিত পড়ুন

হালদা: চলচ্চিত্র ছাপিয়ে একটি আন্দোলনের নাম!

 শরিফুল ইসলাম সীমান্ত:  নির্মাতা তৌকির আহমেদ।’অজ্ঞাতনামা’ দেখার পর দিন দিন তার কাছে বেড়ে চলা প্রত্যাশার পারদটা এবার মিটারের সর্বোচ্চ কাঁটাকে ছুঁয়ে ফেলে। এরপর অপেক্ষা। কবে আসবে তার পরবর্তী চলচ্চিত্র? অপেক্ষার প্রহর খুব বেশি দীর্ঘ করেননি এই গুণী নির্মাতা। এক বছরের বিরতি দিয়ে আবারো হাজির হয়েছেন নতুন চলচ্চিত্র ’হালদা’ নিয়ে। হালদা চলচ্চিত্রের কাহিনী গড়ে উঠেছে বাংলাদেশের অন্যতম এক নদী হালদা ও নদীটিকে উপজীব্য করে বেঁচে থাকা মানুষের জীবনকে ঘিরে। খাগড়াছড়ির রামগড় উপজেলার হালদাছড়া (পাহাড়ি ঝর্ণা) থেকে এই নদীর উৎপত্তি। ৮৮ কিলোমিটার দীর্ঘ এই নদী চট্টগ্রামের কালুরঘাট এলাকায় কর্ণফুলী নদীতে এসে মিশেছে। হালদার গল্পটা মূলত আমাদেরই গল্প। যে গল্পের প্রতিটি দৃশ্যে মিশে আছে বাংলার মানুষের

বিস্তারিত পড়ুন

ক্যাম্পাসে আট চাকায় উড়ে চলা

মাহমুদল হক সোহাগ* ‘এমন যদি হতো, আমি পাখির মতো, উড়ে উড়ে বেড়াই সারাক্ষণ...’ এই গানটি অপছন্দ করেন, এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া যাবে না। তবে এটি নিশ্চিত করে বলা যায়, পাখির মতো উড়ে বেড়ানোর ইচ্ছা সবার মনেই জাগে। এটা বাস্তবে কখনও সম্ভব নাকি? এই প্রশ্নের উত্তর জানতে হলে যেতে হবে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন স্বপ্নবাজ শিক্ষার্থীর কাছে, যারা তাদের সবুজ ক্যাম্পাসের বুকে কখনও আলো ঝলমলে সকালে, কখন পড়ন্ত বিকেলে, আবার কখনও বা রাতের আকাশের তারার নিচে রঙিন পাখির মতো উড়ে বেড়ায় মনের আনন্দে। তাদের পায়ে থাকে চার চার আট চাকার জুতো, যা মাটিকে ছুঁয়ে ছুঁয়ে তাদের নিয়ে ঘুরে বেড়ায় বিশাল ক্যাম্পাসের এক প্রান্ত থেকে

বিস্তারিত পড়ুন

অতিথি পাখিদের মিলনমেলা

রাইয়ান বিন আমিন ঋতুর পালাক্রমে শীত ঘনিয়ে আসছে। এরমধ্যেই একটু-আধটু কুয়াশার চাদর পরে শীত নামতে শুরু করেছে। প্রকৃতির যখন এই অবস্থা, তখনই জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস সাজছে নতুন রূপে। সকালের বিন্দু বিন্দু শিশির ভেজা ঘাস আর সূর্যের উঁকি দেয়ার মূহুর্তে ঘাসের উপর শিশিরের ফোটা যে কাউকেই মোহনীয় করে তুলে। নৈস্বর্গিক শোভামণ্ডিত ও শিক্ষার্থীদের কলরব এবং পাখির কলতানে মুখোরিত প্রকৃতির এক সবুজ ক্যাম্পাস জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়। ষড়ঋতুর এই দেশে শীত উৎসবটা অন্য যেকোনো জায়গার চেয়ে জাবি ক্যাম্পাসে একটু বেশিই। কারণ, শীতের সময়ে যেখানে পাখির কিচির-মিচির আওয়াজের সাথে বসবাসের দূর্লভ সুযোগ মেলে ক্যাম্পাসবাসীর। লাল শাপলার মাঝে দূর থেকে আসা বিভিন্ন প্রজাতির অতিথি পাখির বাহারি খেলায় মেতে

বিস্তারিত পড়ুন